থানায় গিয়ে পুলিশকে মারধর, মুচলেকায় ভাইস চেয়ারম্যানের মুক্তি

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লা মডেল থানায় পুলিশের সঙ্গে উচ্ছৃঙ্খল আচরণ করেও মুক্তি পেয়েছেন সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা মনির। বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) ফতুল্লা মডেল থানায় এ ঘটনা ঘটে।

দিনভর নাটকীয়তা শেষে ৫ ঘণ্টা আটক থাকার পর বিকেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের সামনে মুচলেকায় তাকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। এর আগে সকাল ১১টায় পুলিশের হাতে আটককৃত এক নারীকে ছাড়িয়ে নিতে এসে পুলিশ কনস্টেবলকে মারধর করায় তাকে আটক করে পুলিশ।

জানা যায়, বুধবার রাত ১২টায় দুই আসামিকে গ্রেফতার করে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ। এদের মধ্যে বেলী নামে এক নারী ফাতেমা মনিরের বডিগার্ড হওয়ায় তাকে ছাড়াতে তিনি ছুটে আসেন থানায়। তিনি থানায় প্রবেশ করেই তাদের ছেড়ে দিতে বলে পুলিশের সঙ্গে খারাপ আচরণ ও ধাক্কাধাক্কি করেন। এক পর্যায়ে পুলিশ তাকেও আটক করে লকআপে রেখে দেয়। এর পরপরেই ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের বেশ কিছু নেতাকর্মী তাকে ছাড়াতে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেন।

বেলা ২টার দিকে থানায় আসেন ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফউল্লাহ বাদল, সেক্রেটারি শওকত আলী, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম ও এনায়েতনগর ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান। তাদের তদবিরে মুচলেকা দিয়ে মুক্তি পান ফাতেমা মনির। একই সঙ্গে তিনি পুলিশের কাছে নিজের ভুল স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশ করেন।

এ ব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, পুলিশকে ফোন দিলেই পুলিশ আসামি ছেড়ে দিবে এমনটা ভাবার অবকাশ নেই। তিনি জনপ্রতিনিধি হয়েও আইন ভঙ্গের কাজ করেছেন আর সে কারণেই তাকে আটক করা হয়েছিলো। তিনি নিজের ভুল স্বীকার করেছেন এবং এমন কাজ পরবর্তীতে করবেন না বলে মুচলেকা দিয়েছেন। নারীসহ বিভিন্ন দিক বিবেচনায় আমরা তাকে ছেড়ে দিয়েছি।

দিকদিগন্ত/জেআই

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*