বগুড়ায় আইসোলেশনে ১৩ বছরের শিশুর মৃত্যু

প্রতীকী ছবি

বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি হওয়া ১৩ বছরের শিশু মারা গেছে। বুধবার (১ এপ্রিল) বিকেল ৪টায় ভর্তি হওয়া শিশুটি সন্ধ্যা ৬ টা ৪০ মিনিটে মারা যায়।

বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. শফিক আমিন কাজল জানান, মৃত শিশুটির নমুনা সংগ্রহ করে তা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। শিশুটির বাড়ি গাবতলী উপজেলার মহিষাবান এলাকায়।

মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. এটিএম নুরুজ্জামান সঞ্চয় জানান, শিশুটিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছিল। এজন্য তার বাড়িসহ আশপাশের বাড়িগুলো লকডাউনের জন্য প্রশাসনকে জানানো হবে।

তিনি আরও জানান, ওই শিশুটির সাতদিন আগে পায়ে ব্যথা অনুভূত হয়। সে স্থানীয় এক পল্লী চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা নিচ্ছিল। তবে তিনদিন আগে তার পা ফুলতে শুরু করে এবং গায়ে জ্বর আসে। মঙ্গলবার স্থানীয় এক চিকিৎসক তাকে স্যালাইন ও ওষুধ খেতে দেন। তারপর থেকে শিশুটির শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। বুধবার বেলা সোয়া ৩টায় শিশুটিকে যখন মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে আনা হয় তখন তার অবস্থা খুবই সংকটাপন্ন ছিল। সংজ্ঞাহীন ওই শিশুটিকে অক্সিজেন দেওয়ার পর তার অবস্থা কিছুটা স্থিতিশীল হয় তবে জ্ঞান ফেরেনি। পরে সন্ধ্যা ৬টা ৪০ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

নুরুজ্জামান সঞ্চয় বলেন, ধারণা করছি, ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় শিশুটির এ ধরনের সমস্যা হয়েছিল।

শিশুটিকে আইসোলেশনে নেওয়ার কারণ জানতে চাইলে ডা. কাজল বলেন, জ্বর এবং শ্বাসকষ্ট থাকায় তাকে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছিল।

দিকদিগন্ত/জেআই

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*